অফবিট রেস্টুরেন্টের সেট মেন্যু

0
918

দুপুরে বাসার বাহিরে খেতে হলে খুব ভাবতে হয় আমার। মনে হয় সকাল, রাত আর তার মাঝের বাকি সময় খাওয়া দাওয়া যেমনই হোক, দুপুরে খাওয়া চাই পরিপূর্ণ তৃপ্তি নিয়ে। তাই যে কারণেই হোক, দুপুরে বাহিরে খেতে হলে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগতে হয়। কারণবশতই মূলত দুপুরে বাহিরে খেতে হবে। ভাবনায় পড়লাম কোথায় খাবো তা নিয়ে। প্রথমে ‘বাঙালীয়ানা’ রেস্টুরেন্টে খাওয়ার ইচ্ছে থাকলেও দুর্ভাগ্য বশত রেস্টুরেন্টটি সেদিনই বন্ধ পেলাম। অবশেষে গিয়ে বসলাম অফবিট রেস্টুরেন্টে।

রিকশার আদলে তৈরি আসন; source: off beat

অফবিট রেস্টুরেন্টটি পূর্ব পরিচিত। এখানে আরো বেশ কয়েকবার খাওয়া হয়েছে। তাই এখানকার পরিবেশ ও খাবার সম্পর্কে অনেকটা ধারণা আছে। সেই কারণে মোটামুটি নিশ্চিন্তেই গিয়ে বসলাম দুপুরের খাবারের পাটটা অফ বিট রেস্টুরেন্টে চুকিয়ে ফেলতে।

যেহেতু দুপুর, আর ভরপেট খাওয়া চাই তাই মেন্যুর সেট মেন্যুর অংশেই চোখ বুলালাম। অর্ডার করলাম সেট মেন্যু-৬। এই সেট মেন্যুতে আছে ফ্রায়েড রাইস, ক্রিস্পি ফ্রাইড চিকেন, বিফ চিলি অনিয়ন, মিক্সড ভেজিটেবল কারি আর সালাদ। আলাদা করে ড্রিংস হিসেবে অর্ডার করলাম কোক ও পানি।

দোলনার আসন; source: off beat

এই রেস্টুরেন্টটিতে অর্ডার নেয়ার পর খাবার রান্না করা হয়। তাই প্রচন্ড ক্ষুধা চেপেও আমাকে অর্ডার করার পর বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হলো খাবার রান্না হয়ে আসার জন্য। আর এই বেশ কিছুক্ষণ সময়টি প্রায় আধা ঘণ্টা। প্রায় আধা ঘণ্টা পরই ধোঁয়া ওঠা গরম গরম খাবার দিয়ে গেলো ওয়েটার। অফ বিট রেস্টুরেন্টে দুপুরে আসা হয়নি আজকের আগে আর। এর আগে যতবারই এসেছি এখানে, সময়টা ছিলো বিকেলের পর কিংবা রাত। বিকেলের পর থেকে প্রচন্ড ভিড় থাকলেও দুপুরে তুলনামূলক ভিড় কম ছিলো। তবে এর আগে কখনোই মাছির দেখা পাইনি, এবার রীতিমত বিরক্ত হতে হলো মাছির জন্য।

তিন চারটি মাছি ঘুরছিলো টেবিলের উপর। শুধু আমার টেবিলেই না, প্রায় প্রতিটি টেবিলেই। খাবার খেতে তাই বেশ বিরক্ত লাগছিলো। তবে শুধুমাত্র খাবারের স্বাদ নিয়ে বলতে গেলে প্রশংসাই করতে হবে।

সেট মেন্যু; source: off beat

এই রেস্টুরেন্টটিতে প্রায়ই খাওয়া হচ্ছে ইদানিং। ভালো সার্ভিস, আলাদা ধরণের সাজ-সজ্জা, সুন্দর পরিবেশ ও ভালো মানের খাবারের জন্য রেস্টুরেন্টটিকে বেশ ভালোলেগেছে আমার। তবে খাওয়ার জায়গায় এত মাছির উড়াউড়ি বিষয়টি বেশ দৃষ্টিকটু লেগেছে। খাওয়ার সময় সবাই’ই ভালো একটি পরিবেশ চায়। আমার ক্ষেত্রেও বিষয়টি ভিন্ন নয়।

এ বিষয়টি নিয়ে তাদের কাছে অভিযোগ করি। তারা জানান শুধুমাত্র আজকেই এই সমস্যাটি হচ্ছে। বাইরে থেকে কোনোভাবে মাছি ঢুকে পড়েছে এবং তারা চেষ্টা করছেন সমাধানের। আর সাময়িক এই অসুবিধার জন্য ক্ষমাও চান।

যেহেতু এর আগেও এখানে অনেকবার এসেছি, আমি নিজের অভিজ্ঞতা থেকেও জানি এখানে এমনটি আগে হয়নি। তাই নিজের জায়গা থেকেও ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার চেষ্টা করলাম। আর যেহেতু খাবারের স্বাদ বরাবরের মতই ভালো ছিলো, তাই সাময়িক এই বিরক্তিকে বেশি সময় ধরে রাখলাম না।

খাবারের স্বাদ

সেট মেন্যু-৬; source: লেখিকা

এই রেস্টুরেন্টটির খাবার বরাবরই ধরে রাখছে তাদের এখানকার খাবারের প্রতি ভালোবাসা। আজকের সেট মেন্যুর প্রত্যেকটি খাবারই বেশ ভালো ছিলো। ফ্রাইড রাইস খুব ভালোভাবে সেদ্ধ ও ফ্রাই ছিলো। বিফ চিলি অনিয়নের বিফের ছোট ছোট টুকরোগুলোও ভালোভাবে সেদ্ধ ছিলো ও ভেতরে সবটুকু মসলা বেশ ভালোভাবে ঢুকেছে।

ক্রিস্পি ফ্রাইড চিকেনটি বেশিই ভালো লেগেছে। চিকেনের উপরের ক্রিস্পি অংশ, ভেতরের মাংস সবই এক কথায় অসাধারণ ছিলো। এতই ভালো লেগেছিলো যে আলাদা করে আরো একটি ক্রিস্পি ফ্রায়েড চিকেন অর্ডার করেছিলাম।

ভেজিটেবলে ছিলো পেঁপে, গাজর আর কেপসিকাম। সব মিলিয়ে ভালো ছিলো স্বাদ। সালাদে ছিলো শুধুমাত্র শসা।

রেটিং

ফ্রাইড রাইস- ১০/৮

ক্রিস্পি ফ্রাইড চিকেন- ১০/৯

বিফ চিলি ওনিয়ন- ১০/৮

মিক্সড ভেজিটেবল কারী- ১০/৭

মূল্য

অফ বিট রেস্টুরেন্টের মেন্যু; source: লেখিকা

এই সেট মেন্যু-৬ এর মূল্য ছিলো ২৮০ টাকা। খাবারের পরিমাণ ও স্বাদ অনুযায়ী দাম খুব বেশি মনে হয়নি। একটি সেট মেন্যু, একটি ড্রিংস ও পানি বাবদ খরচ হয়েছে ৩১৫ টাকা।

সার্ভিস

অফ বিট রেস্টুরেন্টের ওয়েটারদের ব্যবহার বেশ ভালো। যেকোনো কথাই তারা মনোযোগ সহকারে শোনে। অভিযোগ করলেও সেটা ভালোভাবে গ্রহণ করেন ও নিজেদের জায়গাটি ভালোভাবে জানানোর চেষ্টা করেন ও ভুলগুলো আবার যাতে না হয় সেদিকেও লক্ষ্য রাখবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। সব মিলিয়ে আমার বেশ ভালোলাগে তাদের আচরণ ও কাজের প্রতি দায়িত্ববোধের জায়গাটি।

পরিবেশ

ঘরোয়া পরিবেশ; source: off beat

আলাদা ধাচের একটি রেস্টুরেন্ট৷ বেশ সুন্দর করে সাজানো ভেতরটি। এমন ডেকোরেশন এখনই অবধি অন্য কোথাও দেখিনি। রিকশায় বসে খাওয়ার ব্যবস্থা, দোলনায় বসে খাওয়ার ব্যবস্থা এছাড়াও অন্যান্য আসনগুলোতে বসে খেতেও বাড়ির অনুভূতি পাবেন। সব মিলিয়ে সুন্দর একটি জায়গা।

অবস্থান

দক্ষিণ বনশ্রী মেইন রোডের ‘কে’ ব্লক। বাড়ি নম্বর ১৮৮। সহজেই চোখে পড়ে রেস্টুরেন্টটি। তাছাড়া তাদের ফেসবুক পেজে দেয়া গুগল ম্যাপের নির্দেশনা ফলো করেও চলে আসতে পারবেন। আসার পূর্বে রেস্টুরেন্টটি সম্পর্কে কিছু জানতে চাইলে কল করতে পারেন ০১৯১৩৪৪৪৯৩৮ এই নাম্বারে। আপনাদের সুবিধার্থে পূর্ণ ঠিকানা দেয়া হলো।

( OFF BEAT: কে-১৮৮, দক্ষিণ বনশ্রী (মেইন রোড), খিলগাঁও, ঢাকা-১২১৯।
ফোন: ০১৯১৩৪৪৪৯৩৮ )

ফিচার ইমেজ- লেখিকা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here