কাঁচা কাঁঠালের দুটি রেসিপি ও সংরক্ষণ পদ্ধতি

0
866

কাঁঠাল আমাদের জাতীয় ফল। কাঁঠালের ইংরেজী নাম : Jack-fruit. বাংলাদেশের সব জায়গায় কম-বেশি কাঁঠাল পাওয়া যায়। কাঁঠাল দেখতে আকারে অনেক বড় হয়ে থাকে। গ্রীষ্মকালীন ফল হিসেবে বসন্ত ও গ্রীষ্মের শুরুতে কাঁচা এবং গ্রীষ্মের শেষে ও বর্ষার শুরুতে পাকা অবস্থায় কাঁঠাল পাওয়া যায়। তবে পাকা ও কাঁচা সবভাবেই কাঁঠাল খাওয়া যায়। এমনকি কাঁঠালের বিচিও তরকারি হিসেবে দারুণ মজাদার ও পুষ্টিদায়ক হয়ে থাকে।

source: subornobhumi.com

কাঁচা কাঁঠালকে এঁচোড় বলা হয়ে থাকে। এঁচোড় তরকারি হিসেবে যেমন সুস্বাদু, তেমনই পুষ্টিকর। তাই আজ আপনাদের জন্য থাকছে মায়ের কাছে থেকে শেখা কাঁচা কাঁঠালের দুইটি রেসিপি। আপনারা চাইলে সারা বছর ফ্রিজে রেখে সংরক্ষণ করেও খেতে পারেন পুষ্টিতে ভরা এই ফলের তরকারি।

কাঁচা কাঁঠালের ভেজিটেরিয়ান রেসিপি

যা যা লাগবে

০ কাঁচা কাঠাল (বিচিসহ) – (আধা
কেজি)

০ পেঁয়াজ কুচি – (১ কাপ)

০ ছোট এলাচ – (৫/৬টি)

০ বড় এলাচ – (৩টি)

০ দারচিনি (২০
সে.মি.) – (কয়েক টুকরো)

০ তেজপাতা – (২টি)

০ লং – (৫/৬টি)

০ রসুন বাটা – (১ টেবিল চামচ)

০ আদা বাটা – (১ টেবিল চামচ)

০ শুঁকনো মরিচ – (৮/১০টি)

০ মরিচ গুঁড়ো – (১ চা চামচ)

০ হলুদ গুঁড়ো – (সামান্য পরিমাণ)

০ ধনে গুঁড়ো – (১ টেবিল চামচ)

০ জিরা গুঁড়ো – (২ টেবিল চামচ)

০ গরম মসলার গুঁড়ো – (১
টেবিল চামচ)

০ কাঁচা মরিচ – (৪-৫টি)

০ লবণ – (স্বাদমতো)

০ সয়াবিন তেল – (১কাপ)

যেভাবে রান্না করবেন

প্রথমে হাতে ও কাঁঠাল কাটার জন্য ব্যবহৃত চাকু কিংবা দায়ে ভালভাবে সরিষার তেল মাখিয়ে কাঁঠালটি কেটে নিন। আপনারা চাইলে হাতে গ্লাভসও পরে নিতে পারেন। এতে কাঁঠালের আঠা থেকে বাঁচতে পারবেন।

source: youtube

কাঁঠালের ওপরের ছাল ও ভেতরের শক্ত অংশ ফেলে দিয়ে কিউব করে কেটে নিন। এবার ভালভাবে ধুয়ে দুই কাপ পানি, এক চিমটি হলুদ ও ১ চা চামচ লবণ দিয়ে চুলায় বসিয়ে দিন। উচ্চতাপে সেদ্ধ করে নিন ১০ মিনিট। ১০ মিনিট পরে আধা সেদ্ধ হলে পানি ঝরিয়ে রেখে দিন।

এবার চুলায় প্যান বসিয়ে সয়াবিন তেল দিয়ে হাল্কা গরম করে ওপরে উল্লেখিত গরম মসলাগুলো দিয়ে দিন। মসলা থেকে ফ্লেভার ছড়ালে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে নাড়তে থাকুন। পেঁয়াজ লাল হয়ে এলে গরম মসলার গুঁড়ো বাদে একে একে সব বাটা ও গুঁড়ো মসলা যোগ করে নিন। একটু পানি দিয়ে মসলাগুলো ভালভাবে কষিয়ে নিন।

source: youtube

মসলা থেকে তেল বেরিয়ে আসলে সেদ্ধ করে রাখা কাঁঠাল দিয়ে ভালভাবে নেড়েচেড়ে মিশিয়ে নিন। শুঁকনো মরিচ কুঁচি করে দিয়ে নেড়েচেড়ে দিন। কাঁচা কাঁঠালের ট্রাডিশনাল স্বাদ পেতে হলে অবশ্যই বেশি তেল, মসলা ও ঝাল দিয়ে রান্না করতে হবে তরকারিটি।

এবার দুই কাপ গরম পানি দিয়ে নেড়ে দিন। গরম মসলা ও ১ চামচ জিরা গুঁড়ো দিয়ে নেড়েচেড়ে ঢেকে ২০ মিনিট রান্না করুন মিডিয়াম আঁচে। পুরোপুরি সেদ্ধ হয়ে গেলে ভালভাবে নেড়েচেড়ে উপরে কয়েকটা কাঁচা মরিচ ছড়িয়ে দিন। এবার চুলা থেকে নামিয়ে পরিবেশন করুন ভাত কিংবা গরম গরম পরোটার সাথে। আপনারা চাইলে সাধারণভাবেও খেতে পারেন মজাদার এই তরকারি।

মাংস দিয়ে কাঁচা কাঠাল ভুনা

মাংস দিয়ে কাঁচা কাঁঠালের এই তরকারি যে একবার খাবে, বারবার খাওয়ার লোভ সামলানো তার জন্য কঠিন হয়ে যাবে। চলুন তাহলে আজ জেনে নেওয়া যাক এই অসাধারণ রেসিপি সম্পর্কে।

যা যা লাগবে

গরু/খাসির মাংস – (আধা কেজি)

কাঁচা কাঁঠাল (বিচিসহ) – (আধা কেজি)

পেঁয়াজ কুচি – (১
কাপ)

ছোট এলাচ – (৫/৬টি)

বড় এলাচ – (৩টি))

দারচিনি – (কয়েক টুকরো)

তেজপাতা – (২ টি)

লং – (৫/৬টি)

রসুন বাটা – (১
টেবিল চামচ)

আদা বাটা – (১
টেবিল চামচ)

শুঁকনো মরিচ – (৮/১০ টি)

মরিচ গুঁড়ো – (১
টেবিল চামচ)

হলুূদ গুঁড়ো – (কোয়ার্টার চা চামচ)

ধনে গুঁড়ো – (১
টেবিল চামচ)

জিরা গুঁড়ো – (২
চা চামচ)

গরম মসলার গুঁড়ো – (১ চা চামচ)

কাঁচা মরিচ – (৫/৬টি)

তেল – (১ কাপ)

লবণ – (স্বাদমতো)

বাগাড় এর জন্য যা লাগবে

০ পেঁয়াজ কুচি – (১টি)

০ আস্ত জিরে – (আধা চা চামচ)

০ শুঁকনো মরিচ – (২/৩টি)

০ সয়াবিন তেল – (১ টেবিল চামচ)

যেভাবে রান্না করবেন

প্রথমে কাঁচা কাঁঠাল কেটে ভালভাবে ধুয়ে দুই কাপ পানি, ১ চিমটি হলুদ গুঁড়ো ও ১ টেবিল চামচ লবণ দিয়ে ভালভাবে সেদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে নিন। এবার একটি পাতিলে মাংস ভালভাবে ধুয়ে নিয়ে তাতে গরম মসলার গুঁড়ো বাদে ওপরে উল্লেখিত সব মসলা যোগ করুন। হাত দিয়ে ভালভাবে মাখিয়ে পেঁয়াজ কুচি গুলো ভেঙে ১ কাপ পানি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে চুলায় বসিয়ে দিন। উচ্চতাপে নেড়েচেড়ে ভালভাবে কষিয়ে রান্না করুন মাংসের পানি শুকানো অব্দি।

source: youtube

মাংসে পানি শুকিয়ে এলে তাতে সেদ্ধ করে রাখা কাঁঠাল দিয়ে নেড়েচেড়ে শুঁকনো মরিচ কুচি করে দিয়ে দিন। ঝালটা একটু বেশিই দিতে হবে। কারণ ঝাল না হলে এই তরকারি খেতে তেমন ভাল লাগে না। এবার গরম মসলার গুঁড়ো দিয়ে নেড়ে দিন। এক কাপ পানি দিয়ে ঢেকে মিডিয়াম আঁচে ১৫-২০ মিনিট রান্না করুন।

ঢাকনা খুলে নেড়েচেড়ে দিন মাঝেমাঝে। তা না হলে পাতিলের গায়ে লেগে ধরবে। ভালভাবে নেড়েচেড়ে কষিয়ে মাখা মাখা করে রান্না করুন। এবার চুলায় একটি প্যান বসিয়ে ১ টেবিল চামচ সয়াবিন তেল দিয়ে তাতে ১ টি পেঁয়াজ কুচি দিয়ে দিন। পেঁয়াজ লাল হয়ে এলে আধা চা চামচ আস্ত জিরে ও ২-৩টি শুঁকনো মরিচ কুচি দিয়ে তাতে রান্না করা কাঁঠাল ও মাংসের ভুনা দিয়ে নেড়ে দিন। ওপরে কাঁচা মরিচ ফালি দিয়ে চুলা থেকে নামিয়ে গরম ভাত, খিচুড়ি বা গরম গরম পরোটার সাথে পরিবেশন করুন সুস্বাদু এই খাবারটি।

কাঁচা কাঁঠালের পুষ্টিগুণ

কাঁচা কাঁঠাল আমিষ ও ভিটামিন সমৃদ্ধ তরকারি। কাঁঠালের ৪-৫ কোয়া থেকে ১০০ কিলোক্যালরি শক্তি পাওয়া যায়। কাঁঠাল অন্ধত্ব প্রতিরোধ করে। ভিটামিন ‘এ’ ছাড়াও কাঁঠালে ভিটামিন ‘বি’ ও ‘সি’ রয়েছে। তাই আমাদের উচিত বেশি করে কাঁঠাল গাছ লাগানো।

source: dailybangladesh.com

কাঁচা কাঠাল সংরক্ষণ পদ্ধতি

প্রথমে কাঁচা কাঁঠাল কেটে ভালভাবে ধুয়ে পানি, লবণ ও সামান্য হলুদ দিয়ে আধা সেদ্ধ করে নিন ১০ মিনিট। এমনভাবে পানি দিতে হবে যেন কাঁঠালের গায়ে পানি লেগে থাকে। ১০ মিনিট পরে অতিরিক্ত পানি ঝরিয়ে ফ্যানের নিচে রেখে শুকিয়ে রুম টেম্পারেচারে আনুন। এরপর পলিথিন অথবা বক্সে রেখে অতিরিক্ত বাতাস বের করে ভালভাবে মুখ আটকিয়ে ডিপ ফ্রিজে সারা বছরের জন্য সংরক্ষণ করতে পারেন।

Featured Image: youtube

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here