চায়নার সবচেয়ে জনপ্রিয় ১০টি খাবার

0
392

চায়নার খাবারের কথা বললে অজস্র খাবারের কথা চলে আসবে। কোটি কোটি মানুষের এই দেশটা রসনা বিলাসের দিক থেকে ঐতিহ্যগতভাবেই বেশ সমৃদ্ধ। সেই প্রাচীনকাল থেকেই খাদ্য সম্ভারের দিক থেকে অন্য সব জাতি থেকে এগিয়ে ছিল চায়না। সেই ঐতিহ্যের প্রেক্ষিতেই এখনো নতুন নতুন রসনা বিলাসে চায়নার জুড়ি মেলা ভার। সেই সব মজার মজার খাবারের মধ্যে চায়নার সবচেয়ে জনপ্রিয় দশটি খাবার নিয়েই লেখা হয়েছে এই প্রবন্ধটি।

১. বোউল্লি

এই খাবার বোউল্লি ছাড়াও হংশাওরো আর দংপোওরো নামেও পরিচিত। এটা দংপোওরো নামে পরিচিত হওয়ার কারণ সং ডাইনিস্ট্রির সময়ের কবি সু দংপুর সাথে এই খাবারের সম্পর্ক। প্রায় এক হাজার বছর আগে এই কবি দংপোওরো নামের খাবার আবিষ্কার করেন, এবং এটা সমগ্র চায়নাতে ছড়িয়ে দেন।

বোউল্লি; Source: chinatours.com

এই খাবার খুবই ভালো মানের শুয়োরের মাংস থেকে তিন স্তরের মাংস দিয়ে তৈরি করা হয়। বাদামী চিনি, সয়া সস, রান্নার ওয়াইন দিয়ে জিবে জল আনা খুব ব্যতিক্রমী সস তৈরি হয় এর সাথে খাওয়ার জন্য। এই সসের সাথে ক্যাসারোল দিয়ে হালকা আঁচে রান্না হয় আদি ও আসল বোউল্লি।

২. অন্তন

চায়নিজ ডাম্পলিং এর আগে সমগ্র চায়নাতে পরিচিতি পাওয়া একটা খাবার হচ্ছে অন্তন। এটা চায়নার বিভিন্ন অঞ্চলে হন্তন, বাউফু, বিয়ানসি সহ বিভিন্ন নামে পরিচিত। অন্তনের উপরের অংশটা বানানো হয় ময়দা দিয়ে। আর ভেতরে থাকে বিভিন্ন ধরনের রসালো এবং মজাদার পুর।

অন্তন; Source: chinatours.com

চিংড়ি, তাজা তরকারি, টুকরো করে কাটা পেয়াজ, আদা আর মাঝে মাঝে শুয়োরের মাংস দেয়া হয়। মজাদার নানা জিনিসে ঠাসা স্যুপ দিয়ে অন্তন অবশ্যই চেখে দেখার মত একটা খাবার।

৩. ডাম্পলিং

এটা চায়নার ঐতিহ্যবাহী একটা খাবার। প্রায় ১৮০০ বছর আগে অন্তন থেকে তৈরি হওয়া এই খাবার চায়নাতে খুবই জনপ্রিয়। বিভিন্ন ধরনের উৎসবে, বিশেষ করে শীতকালীন এবং বসন্তকালীন উৎসবে, চায়নার উত্তর এবং দক্ষিণ উভয় অঞ্চলেই অন্তনের ব্যবস্থা করা হয়। সুস্বাস্থ্য এবং সৌভাগ্যের প্রতীক হিসাবে ধরা হয় ডাম্পলিংকে।

ডাম্পলিং; Source: chinatours.com

ডাম্পলিং তৈরির সময় মানুষ এর ভেতরে চিনি, চিনাবাদাম, খেজুর, আখরোট পুর হিসেবে ব্যবহার করে থাকেন। যারা চিনি ভর্তি ডাম্পলিং খাবেন, তারা ভবিষ্যতে ভালো জীবন-যাপন করবেন। যারা আখরোট বা খেজুর ভর্তি ডাম্পলিং খাবেন, তারা স্বাস্থ্যবান সন্তানের পিতা/মাতা হবেন। আর যারা চিনাবাদাম ভর্তি ডাম্পলিং খাবেন, তারা সুস্বাস্থ্য এবং দীর্ঘায়ু লাভ করবেন।

৪. মাফু-টফু

মাফু-টফু মূলত শিচুয়ান রন্ধনপ্রণালীর খাদ্য। কিন্তু বর্তমানে এই খাবার সমগ্র চায়নাতেই জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। এই খাবারটা প্রথমবারের মত শিচুয়ান প্রদেশের চেংগডু নামক রেঁস্তোরায় বানানো হয়। চিং ডাইনেস্ট্রির এই রাঁধুনির গালে ব্রণ থাকায় মানুষ চেং মাফু বলে ডাকতো। পরবর্তীতে তার তৈরি করা টফুটা মাফু-টফু নামে জনপ্রিয়তা পায়।

মাফু-টফু; Source: chinatours.com

তাজা এবং নরম টফুটা চিলি আর চূর্ণ করা মশলাযুক্ত সস দিয়ে চুবিয়ে খেতে ভারী মজা।

৫. রাইস ফ্রাইড উইথ এগস

১৯৭২ সালে, চীনের হুনান প্রদেশে ডিম দিয়ে ফ্রাইড রাইস সম্পর্কিত কিছু তথ্য আবিষ্কৃত হয়। পরবর্তীতে সেখান থেকেই রান্নার পদ্ধতিটা স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়।

রাইস ফ্রাইড উইথ এগস; Source: chinatours.com

বর্তমানে এই খাবারটা দানচাওফান নামে পরিচিত। আর চমৎকার স্বাদ ও ঘ্রাণের জন্য বিখ্যাত।

৬. সোটেড সুইট এন্ড সাওয়ার টেন্ডারলইন

চায়নার রসনা বিলাসে ঐতিহ্যবাহী এই খাবার ট্যাংচুলিজি নামেও পরিচিত। এ খাবার তৈরিতে মূল উপাদান শুয়োরের মাংস। সাথে ময়দা, চিনি এবং ভিনেগার ব্যবহার করা হয়। টক-মিষ্টি স্বাদ, মচমচে বাইরের অংশ আর ভেতরের নরম মাংস পুরো খাবারটাকে অন্যরকম আলাদা মজাদার করে তোলে।

সোটেড সুইট এন্ড সাওয়ার টেন্ডারলইন; Source: chinatours.com

এই টক-মিষ্টির জনপ্রিয়তা একই রকমের অনেকগুলো খাবারকে জনপ্রিয় করে তুলেছে চায়নাতে।

৭. সোটেড ডাইসড চিকেন উইথ পিনাট এন্ড চিলি

সোটেড ডাইসড চিকেন উইথ পিনাট এন্ড চিলি খাবারটা চায়নাতে কং পাও চিকেন আর গংবাওজিডিং নামে জনপ্রিয়। কং পাও চিকেনের জনপ্রিয়তা শুধু চায়নাতেই নয়, ছড়িয়ে পড়ছে সারা বিশ্বেও।

সোটেড ডাইসড চিকেন উইথ পিনাট এন্ড চিলি; Source: chinatours.com

আমেরিকা, ইংল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশের রেঁস্তোরাতে এই মজাদার খাবার পাওয়া যায়। মুরগির সাথে বাদাম, শসা এবং ঝাল মরিচ দিয়ে রান্না করা হয় এই খাবার।

৮. স্টির-ফ্রাইড নুডলস

স্টির ফ্রাইড নুডলস চাওমিন নামেও পরিচিত। মজাদার এবং সহজলভ্য খাবারের তালিকায় উপরের দিকেই থাকবে এটা। এই খাবার তৈরি করা হয় বীন, কর্নফ্লাওয়ার, ডিম, মাংস পেয়াজ আর সসেজ দিয়ে।

স্টির-ফ্রাইড নুডলস; Source: chinatours.com

উত্তর চায়নাতে প্রায় প্রতিটা রেঁস্তোরাতে পাওয়া যায় মজাদার এই খাবার।

৯. পেকিং ডাক

যদিও পেকিং ডাক শুধুমাত্র বেইজিং এর রসনা ছিলো, কিন্তু এটার জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ছে সারা বিশ্বে। মিং ডাইনেস্টির হান গোত্রের মানুষেরা উদ্ভাবন করেছিলেন এই খাবার। তখন শুধুমাত্র রাজকীয় খাবার ছিলো পেকিং ডাক।

পেকিং ডাক; Source: chinatours.com

হাসের নরম, রসালো মাংসের উপরে থাকে এর মচমচে চামড়া। স্প্রিং অনিয়নের ঠুকরো, পাতলা প্যানকেক আর মিষ্টি সসের সাথে পরিবেশন করা হয় পেকিং ডাক।

১০. স্প্রিং রোলস

পাতলা ময়দার আবরণ আর তার ভেতরে বিভিন্ন মিষ্টি পুর দিয়ে ভর্তি এই খাবারের নাম স্প্রিং রোলস। শুরুর দিকে শুধুমাত্র দক্ষিণ চায়নাতে হলেও বর্তমানে এর জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ছে সব জায়গায়।

স্প্রিং রোলস; Source: chinatours.com

ভেতরে পুর হিসাবে বাদাম, চিনি, বীনের ক্রিমসহ বিভিন্ন মিষ্টান্ন ব্যবহার করা হয়। তারপর হলুদ হওয়া পর্যন্ত গরম তেলে ভাজা হয়। স্প্রিং রোল খুবই পুষ্টিকর একটা খাবার। ভেতরের পুরের উপর স্প্রিং রোলের আলাদা আলাদা পুষ্টিগুণ নির্ভর করে।

 

ফিচার ইমেজ- chinatours.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here