পাকিস্তানের ঐতিহ্যবাহী খাবার বালতি গোশত

0
865

মুসলিমদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দু’টির দ্বিতীয়টি হল ঈদুল আযহা। ঈদুল আযহা’কে চলতি ভাষায় কুরবানি ঈদ বলা হয়। আর ঈদ মানে হল আনন্দ কিংবা খুশি। কিন্তু কুরবানি ঈদ আনন্দের সাথে সাথে আত্মোপলব্ধি, ত্যাগ ও উৎসর্গেরও ঈদ। মুসলমানদের প্রিয় কোনো পশু জবেহ করার মাধ্যমে এ ত্যাগ সার্থকতা পায়।

ফলে কুরবানি ঈদ বয়ে আনে বাড়তি ঝামেলা। অনেকে না চাইলেও বাধ্য হয়ে রান্না করেন নানা পদের মাংসের রেসিপি। মাংস খেতে কে না পছন্দ করে? তবে মাংসের একঘেয়ে রান্না খেতে কেউই পছন্দ করে না। কিন্তু রেসিপি জানা না থাকলে নতুন কোনো পদ রান্না করাও সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাই আজ আপনাদের সামনে উপস্থাপন করছি পাকিস্তানের একটি ঐতিহ্যবাহী খাবার রেসিপি বালতি কাবাব কিংবা বালতি গোশত।

source: cdninstagram.com

বালতি কাবাব বা গোশত নাম শুনলে কেমন হাসি পাচ্ছে, তাই না? আসলে হাসি পেলেও এটা কিন্তু পাকিস্তানের একটি ট্রাডিশনাল রেসিপি। কথিত আছে, পাকিস্তানের গ্রামীণ কোনো অনুষ্ঠানে মাংস রান্না করে বালতিতে পরিবেশন করা হতো। তখন থেকেই এই রেসিপিটি বালতি গোশত নামে পরিচিতি পায়।

তবে মজার বিষয় হলো, গরুর মাংসের এই রেসিপিটি রান্না করতে কোনো পেঁয়াজ ব্যবহার করা হয় না। পেঁয়াজ ব্যবহার করা না হলেও এই রেসিপিটি খেতে দারুণ সুস্বাদু ও রসালো হয়।

source: images.dawn.com

আর আপনারা চাইলে গরু, খাসি কিংবা ভেড়া যে কোনো পশুর মাংস দিয়েই এই রেসিপিটি রান্না করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে রেসিপির কোনো পরিবর্তন হবে না। আমাদের রান্নাঘরের হাতের কাছে থাকা প্রয়োজনীয় কিছু উপকরণ দিয়েই অনায়াসে এই রেসিপি রান্না করা যায়। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক কীভাবে তৈরি করবেন এই চমৎকার রেসিপিটি।

যা যা লাগবে

০ গরুর মাংস – (১ কেজি)

০ আদা বাটা – (১ টেবিল চামচ)

০ রসুন বাটা – (১ টেবিল চামচ)

০ গরম মসলার গুঁড়ো – (১ চা চামচ)

০ শুকনো মরিচের গুঁড়ো – (১চা চামচ)

০ গোল মরিচের গুঁড়ো – (১ চা চামচ)

০ হলুদ গুঁড়ো – (আধা চা চামচ)

০ আস্ত জিরে – (১ টেবিল চামচ)

০ আস্ত ধনে – (১ টেবিল চামচ)

০ টমেটো কুচি – (২ কাপ)

০ কাঁচা মরিচ কুচি – (১ চা চামচ)

০ ধনেপাতা – (স্বাদমতো)

০ সয়াবিন তেল – (আধা কাপ)

০ টক দই – (আধা কাপ)

০ লবণ – (স্বাদমতো)

০ দারচিনি – (২ টুকরো)

০ বড় এলাচ – (২টি)

০ ছোট এলাচ – (৫/৬টি)

০ লবঙ্গ – (৭/৮টি)

০ তেজপাতা – (২টি)

০ স্টার এনিস মসলা – (১টি)

যেভাবে রান্না করবেন

প্রথমে গরু কিংবা খাসির মাংস ভালভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। এবার চুলায় একটি তাওয়া বসিয়ে উচ্চতাপে গরম করে আস্ত জিরে ও ধনে দিয়ে চুলা বন্ধ করে দিন। কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে জিরে ও ধনে থেকে গন্ধ বের হতে শুরু করলে ব্লেন্ডারে দিয়ে আধা ভাঙ্গা গুঁড়ো করে ঢাকনি দিয়ে ঢেকে রাখুন। কেননা ঢেকে রাখলে মসলার ফ্লেভারটা ইনটেক থাকবে।

তবে আপনারা চাইলে পাটায়ও বেটে নিতে পারেন। অবশ্যই মিহি গুঁড়ো করা যাবে না। এতে খাবারের স্বাদ কমে যাবে।

source: landmetzgerei-weisenhorn.de

এখন চুলোয় একটি প্যান বসিয়ে আধা কাপ রান্নার তেল দিয়ে গরম করে নিন। উক্ত তেলে গরম মশলাগুলো দিয়ে নাড়তে থাকুন। গরম মশলা থেকে সুন্দর এ্যারোমা বের হতে শুরু করলে মাংস দিয়ে ২ মিনিটের মতো নাড়তে থাকুন।

মাংসের রং পরিবর্তন হলে আদা ও রসুন বাটা দিয়ে আরো ২ মিনিটের মতো ভাজতে থাকুন। মাংস থেকে পানি বের না হলে প্রয়োজনমতো গরম পানি দিয়ে দিন। তবে মাংস ফ্রেশ থাকলে পানি দিতে হবে না। তখন মাংস থেকেই পানি বের হবে। আর ফ্রেশ মাংস যেভাবেই রান্না করুন না কেন খেতে সুস্বাদু লাগবে। তাই একেবারে ফ্রেশ মাংস নিয়ে রেসিপিটি বানাতে পারেন। এতে খাবারের মান ও স্বাদ ঠিক থাকবে।

source: mongoliankitchen.com

মাংস রান্নার এ পর্যায়ে টমেটো কুচি দিয়ে নেড়েচেড়ে হলুদ গুঁড়ো ও লবণ দিয়ে দিন। প্রথমে একটু গোলমরিচ গুঁড়ো দিয়ে নেড়েচেড়ে দিয়ে আরো কিছু গোলমরিচ গুঁড়ো দিয়ে দিন। এ রেসিপিতে গোলমরিচের গুঁড়ো একটু বেশিই লাগে। আপনারা চাইলে হাড় ও চর্বিসহ মাংস রান্না করতে পারেন। আসলে হাড় ও চর্বি ছাড়া মাংস খেতে তেমন ভাল লাগে না আমার। তবে ট্রাডিশনালি এই রান্না নাকি হাড়-চর্বি ছাড়াই করা হতো।

এভাবে নেড়েচেড়ে ঢেকে আরো ৫ মিনিট রান্না করুন। টমেটো গলতে শুরু করলে ওপরে উল্লেখিত অন্যান্য উপকরণগুলো একে একে যোগ করুন। টক দই অবশ্যই আগে থেকে ভালভাবে ফেটিয়ে রেখে ব্যবহার করতে হবে। টক দই ফেটিয়ে ব্যবহার না করলে কেমন জানি ছাড়া-ছাড়া হয়ে যায়। এতে তরকারি দেখতে মোটেও ভাললাগে না।

এবার ঢাকনা দিয়ে ঢেকে আরো কিছুক্ষণ রান্না করুন। এপর্যায়ে মাংসগুলি একটু টেস্ট করে নিতে হবে। পুরোপুরি মাংস সেদ্ধ না হলে গরম পানি দিয়ে আরো ৭-৮ মিনিট রান্না করতে হবে। পুরো রান্নাটা শেষ করতে হবে মিডিয়াম আঁচে। সবশেষে জিরে ও ধনে গুঁড়ো দিয়ে ঢেকে কম আঁচে আরো ৫ মিনিট রান্না করুন। ওপরে ধনেপাতা ছড়িয়ে দিন। আপনারা চাইলে টমেটো ও টকদই ব্যালেন্স করতে আধা চা চামচ চিনিও ব্যবহার করতে পারেন।

source: bonappetempt.pk

ব্যস আপনার বালতি গোশত প্রস্তুত। এবার ইচ্ছেমতো পাত্রে নিয়ে পরিবেশন করুন। আপনারা চাইলে রেসিপির নামের সার্থকতা রাখতে বালতিতে করেও ভাত, পোলাও কিংবা খিচুরির সাথে পরিবেশন করতে পারেন!

Featured Image: bethicad.blogspot.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here