বার্গারের টানে বার্গারোলজিতে

0
630

অনেক অনেক ফাস্টফুডের মধ্যে বার্গার আমার অন্যতম প্রিয় একটি খাবার। আমি সবসময়ই বার্গারকে ভালোবাসা বলে ডাকি। কাছাকাছি যতো জনপ্রিয় বার্গার শপ আছে সবগুলোর বার্গারই চেখে দেখা শেষ। কিন্তু কিছু দূরের বার্গার শপ আছে, যেগুলোতে যেতে পারি না বলে বেশ আফসোস হয়। তেমনই একটি বার্গার শপ হলো “বার্গারোলজি” (Burgerology)।

বার্গারোলজির প্রথম শাখাটি যমুনা ফিউচার পার্কের সাথে অবস্থিত। দ্বিতীয় শাখাটি ওয়ারিতে। যমুনা ফিউচার পার্ক আমার বাসা থেকে বেশ দূরে। ওয়ারি মোটামুটি কাছে হলেও ওদিকেও যাওয়া হয় না। তাই বিভিন্ন ফুডিজ গ্রুপ আর ফেইসবুক পেইজে বার্গারোলজির বার্গারের ছবি দেখে দেখে আফসোসই বাড়াচ্ছিলাম। কিন্তু সময় করে আর বার্গার খেতে যাওয়া হচ্ছিলো না।

মজাদার বার্গার; Source: লেখিকা

হুট করে যমুনা ফিউচার পার্কে একটা কাজ পড়ে যাওয়ায় ওদিকে যাই। সুযোগ পাওয়ার পর বার্গার না খেয়ে আসার প্রশ্নই আসে না। সেজন্য বেশি উত্তেজনায় যে কাজে গিয়েছিলাম, তা করার আগেই বার্গারোলজিতে ঢুঁ মারতে চলে যাই। গিয়ে দেখি একেবারেই ছোট একটি বার্গার শপ। ভেতরে খুব বেশি জায়গা নেই। তবে গিয়েই টেবিল খালি পেয়ে যাই। প্রচণ্ড গরম ছিলো সেদিন, তাই দেরি না করে বিশ্রাম নেয়ার জন্য বসে যাই।

প্রথমেই মিনিট দশেক বিশ্রাম নিয়ে নিই। এরপর মেন্যু দেখতে শুরু করি। সেদিন প্রচণ্ড গরম থাকায় আমি একটু ছোট আকারের বার্গার নিই। যাতে চিজ আর মেয়োনিজও কম খেতে হয়। একই সাথে শখের ডায়েট কন্ট্রোলও যেনো একটু কন্ট্রোলে থাকে! আমার সাথে থাকা বন্ধু পছন্দ করে নেয় স্মোকি ডাবল চিজি চিকেন। সাথে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই আর বার্গারোলজির বেশ জনপ্রিয় ডিঙ্ক লিমোনানা।

বার্গার কতোটা জুসি ছবিতেই বোঝা যাচ্ছে; Source: লেখিকা

বার্গারোলজির বার্গার কিনতে হয় প্রথমে মূল্য পরিশোধ করে। আমার গরমে খানিকটা অসুস্থ লাগছিলো বলে বন্ধুকেই পাঠাই বার্গারগুলো অর্ডার করতে। অর্ডার করার দশ মিনিটের মধ্যে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, বার্গার আর লিমোনানা আমাদের টেবিলে চলে আসে। ফ্রেঞ্চ ফ্রাই দিয়েই খাওয়া শুরু করি। শেষ করি লিমোনানায় চুমুকে। এবার সবকটি খাবার সম্পর্কেই বিস্তারিত বর্ণনা করছি।

ফ্রেঞ্চ ফ্রাই

ফ্রেঞ্চ ফ্রাই; Source: লেখিকা

আমাদের দেশের অধিকাংশ বার্গার শপগুলোতেই ফ্রেঞ্চ ফ্রাই খুব সাধারণ মানের এবং স্বাদের হয়। বার্গারোলজিতেও ব্যতিক্রম কিছু ছিলো না। একবারেই সাধারণ মানের স্বাদ ছিলো ফ্রেঞ্চ ফ্রাইগুলোর। তবে কুড়মুড়ে করে ভাজায় খেতে ভালোই লাগছিলো। আরেকটি ব্যাপার হলো পরিমাণে বেশ ভালো ছিলো। একটি ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের প্যাকেজ নিয়েই দু’জন আরাম করে খাওয়া যায়। ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের সাথে দেয়া মায়ো সসটিও বেশ মজাদার ছিলো।

বিফ বার্গার

বিফ বার্গার আমার খুবই পছন্দের ফ্লেভারের বার্গার। বার্গারের বানের ভেতরে বিফ প্যাটি দেখলেই ভালোলাগে। বার্গারোলজিতেও বিফ বার্গারই নিয়েছিলাম। প্রথমেই শুরু করি বার্গারের বানের কথা দিয়ে। বার্গারোলজির বার্গারের বানটি ছিলো খুবই সফট এবং মজাদার। বার্গারের বান ভালো না হলে কোনো স্বাদই পাওয়া যায় না। বানটি বেশ মজাদার ছিলো।

বিফ বার্গার; Source: লেখিকা

বিফ প্যাটিটিও বেশ সুস্বাদু ছিলো। তবে আকারে একবারেই ছোট আর প্যাটিতে বিফের পরিমাণও ছিলো কম। তবে প্যাটিটিও বেশ জুসি ফ্লেভারের ছিলো। বিফ বার্গারটিতে চিজ আর মেয়োনিজে ভরপুর ছিলো। সব মিলিয়ে খেতে বেশ ভালো লেগেছিলো। বিফ বার্গারটি খুব বড় নয়, মাঝারি আকারের ছিলো।

স্মোকি ডাবল চিজি চিকেন

স্মোকি ডাবল চিজি চিকেন বার্গারটি খেতে ছিলো খুবই সুস্বাদু। বিফ বার্গারটির চেয়ে এই বার্গারটি তুলনামূলক বেশি স্বাদযুক্ত ছিলো। নামের সাথে সার্থকতা রেখেই প্যাটির চিকেন ছিলো স্মোকি ফ্লেভারযুক্ত। স্মোকি ফ্লেভারের বার্গারও আমার বেশ ভালো লাগে। বানটি বিফ বার্গারের বানের মতোই ছিলো। এই বার্গারটিতে লেটুসপাতা আর টমেটোও ছিলো।

স্মোকি ডাবল চিজি চিকেন; Source: লেখিকা

স্মোকি ডাবল চিজি চিকেন বার্গারটির বিশেষত্ব হলো এর এক্সট্রা চিজিনেস। চিজ আর মেয়োনিজে টইটম্বুর ছিলো বার্গারটি। খাওয়ার সময় খুব সাবধানে খেতে হচ্ছিলো, এতোটাই জুসি। যারা জুসি বার্গার পছন্দ করেন, তারা এই বার্গারটি খেয়ে খুবই মজা পাবেন। প্যাটিতে পর্যাপ্ত পরিমাণ চিকেনও ছিলো। সব মিলিয়ে এই বার্গারটি খেয়ে তৃপ্তি পেয়েছিলাম।

লিমোনানা

লিমোনানা; Source: লেখিকা

লেমনেডের এই নানা জাতীয় নামটিই বেশ আকর্ষণীয়। বার্গারোলজির বার্গারের থেকেও এই আইটেমটির প্রশংসা শুনেছি অনেক বেশি। যথেষ্ট রিফ্রেশিং একটি ড্রিঙ্ক লিমোনানা। তবে যতোটা প্রশংসা শুনে গিয়েছিলাম ততোটা আহামরিও না। লেমনেডটিতে লেবু আর লেটুস পাতা ছাড়াও সম্ভবত আরো কিছু উপাদান ব্যবহার করা হয়েছিলো। একটু ভিন্ন ফ্লেভার পেয়েছিলাম।

রেটিং

ফ্রেঞ্চ ফ্রাই – ৭/১০
বিফ বার্গার – ৭/১০
স্মোকি ডাবল চিজি চিকেন- ৮/১০
লিমোনানা – ৮/১০

মূল্য

মূল্যের দিক থেকে বার্গারোলজির বার্গারগুলো বেশ সস্তা। কোনোরকম ভ্যাট বা চার্জও নেই। ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের মূল্য ১০০ টাকা, বিফ বার্গার ১৬০ টাকা, স্মোকি ডাবল চিজি চিকেন ২৮০ টাকা এবং লিমোনানাটি ১০০ টাকা মাত্র। পাঠকদের সুবিধার জন্য পুরো মূল্যতালিকার একটি ছবিও এখানে সংযোজন করে দিচ্ছি।

মূল্যতালিকা; Source: লেখিকা

পরিবেশ এবং সার্ভিস

বার্গারোলজিতে শুধু খাবারের স্বাদ নিতেই যেতে পারবেন। নিরিবিলিতে সময় কাটানোর মতো নয় রেস্টুরেন্টটি। বসুন্ধরা আবাসিকের শাখাটি খুবই ছোট। আমার কাছে পরিবেশটা বেশ অগোছালো লেগেছে। আশেপাশে বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয় থাকায় দলে দলে বন্ধুদের আড্ডা চলতেই থাকে। এমনিতে বসার সোফাগুলো আরামদায়ক এবং পুরো রেস্টুরেন্টটিও শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।

বার্গারোলজি; Source: লেখিকা

বার্গারোলজির সার্ভিস আমার একদমই ভালো লাগেনি। বার্গারের সাথে কোকাকোলা অর্ডার করেছিলাম। বার্গার পরিবেশনের পরেও আরো দুইবার বলার পর কোকাকোলা দিয়ে যান। এরমধ্যে এক্সট্রা সস চাইলেও বার্গার খাওয়া যখন প্রায় শেষ তখন সস সরবরাহ করে। সব মিলিয়ে সার্ভিস একবারেই ভালো লাগেনি।

লোকেশন

বসুন্ধরা আবাসিক – কেএ ২৪/৪, সরকার মার্কেট (১ম তলা), বসুন্ধরা রোড।

ওয়ারি – ৩য় তলা, রোজ ভ্যালি শপিংমল, ২৯ র‌্যাঙ্কিং স্ট্রিট, ওয়ারি।

Feature Image: Burgerology

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here