রেস্টুরেন্টে গিয়ে ইন্সটাগ্রামিং করার নিয়ম-কানুন

0
722

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম চালু হওয়ার পর থেকে আমরা প্রায় সকলেই প্রতিদিনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে থাকি। ব্যক্তিগত কোনো সাফল্য থেকে শুরু করে শারীরিক অসুস্থতা, প্রায় সবই ফেসবুক, টুইটার বা ইন্সটাগ্রামের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করি।

আমাদের মধ্যে প্রায় সবারই রেস্টুরেন্টে গিয়ে ছবি তোলার প্রবণতা রয়েছে। ছবিগুলো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্টও করে থাকি। অনেকের কাছে এই কাজটি বিরক্তিকর হলেও কারো কারো কাছে এটা প্যাশন। বিশেষ করে যারা ফুড ব্লগিং করে থাকেন তাদের কাছে রেস্টুরেন্টে গিয়ে ছবি তোলা অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

বিশ্বজুড়ে ফুড ইন্সটাগ্রামিংয়ের জনপ্রিয়তা রয়েছে; Image Source: Getty Imagea

কিন্তু বিগত বছরগুলোতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বড় বড় রেস্টুরেন্টগুলোতে খাবারের ছবি তোলা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বিশেষ করে ডিনারের সময় অনেক রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ ছবি তোলার ক্ষেত্রে আপত্তি জানান। অনেক রেস্টুরেন্টে আবার ‘নো ফটো প্লিজ’ ট্যাগও ঝুলানো থাকে।

খাবারের ছবি নেওয়ার ক্ষেত্রে শেফরা অনেক আগে থেকেই বিরোধিতা করে আসছেন। কেননা একজন শেফকে তার বিশেষ কোনো খাবারের পদকে আকর্ষণীয়ভাবে সাজানোর জন্য কয়েক মাস পর্যন্ত চেষ্টা চালাতে হয়। পাশাপাশি অনেক অর্থও ব্যয় হয়। কিন্তু আমরা রেস্টুরেন্টে গিয়ে কয়েক সেকেন্ডে খাবারের ছবি তুলে ফেলি। কখনো কখনো সেটা দেখতে বেশ খারাপ হয়। আর সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করলে শেফের নেতিবাচক প্রচার হয়।

ওভারহেড শট নেওয়ার সময় বারবার দাঁড়ানো উচিত না; Image Source: Getty Images

রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ ডিনারের সময় ছবি তুলতে নিষেধ করে থাকেন তাদের ব্যবসায়ীক কারণে। কেননা যখন একজন খাবারের ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন, তখন রেস্টুরেন্টে আসা অন্যদের সমস্যা হতে পারে বা কখনো কখনো হয়েও থাকে। ছবি তোলার জন্য বারবার ক্যামেরার ফ্লাশ জ্বালালে কিংবা ভালো ছবি নেওয়ার জন্য বারবার উঠে দাঁড়ালে এবং নড়াচড়া করলে অন্যরা বিরক্তবোধ করেন। ফলে রেস্টুরেন্ট মালিকদের ব্যবসায়ও প্রভাব পড়ে।

রেস্টুরেন্টে ছবি তোলার বিষয়ে আপত্তির আরো কিছু কারণ রয়েছে। একটি কারণ হলো ফুড ব্লগার বা ইন্সটাগ্রামাররা রেস্টুরেন্টে এসে বড় জোর একটা বা দুইটা খাবার অর্ডার করেন। খাবার খাওয়া তাদের কাছে মুখ্য নয়। ছবি বা ভিডিও নেওয়াই মূল বিষয়। আর এর জন্য তারা অনেক সময় ব্যয় করে থাকেন। কিন্তু একই সময়ে অন্য কেউ হয়তো সেই টেবিলে অনেক খাবার অর্ডার করতে পারেন। ফলে রেস্টুরেন্টের মালিক লাভবান হতেন। আরো একটি কারণ হচ্ছে অনেক শেফ বা রেস্টুরেন্ট মালিক চান না তাদের খাবার সম্পর্কে কেউ নেতিবাচক রিভিউ দিক। এজন্য তারা খাবারের ছবি তুলতে নিষেধ করে থাকেন।

মানতে হবে বিভিন্ন নিয়ম-কানুন; Image Source: tefal.co.uk

তবে ইন্সটাগ্রামে ফুড ব্লগিং বেশ আকর্ষণীয় কাজ। তার জন্য ছবি বা ভিডিও অবধারিতভাবে প্রয়োজন। তাই সকল বাধা বিপত্তিকে এড়ানোর জন্য চাই সচেতনতা ও কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলা। এ বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ান ফুড ক্রিটিক ম্যাট প্রেস্টন কিছু নিয়ম অনুসরণের কথা বলেছেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক রেস্টুরেন্টে ছবি তোলার সময় কী করবেন আর কী করবেন না।

  • ছবি তোলার সময় খুবই সতর্কতা অবলম্বন করবেন।
  • রেস্টুরেন্টে আসা অন্যান্য লোকজনের গোপনীয়তাকে সম্মান করবেন এবং তাদের যাতে কোনো বাজে অভিজ্ঞতা না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন।
  • ওভারহেড শট নেওয়ার জন্য বারবার উঠে দাঁড়াবেন না এবং কোনো আসবাবপত্রের ওপর উঠবেন না।
  • ভুলেও কখনো ফ্লাশলাইট ব্যবহার করবেন না
  • খাবার খাওয়ার আগেই শুধুমাত্র চোখের দেখায় খাবারের সমালোচনা করবেন না। এতে করে যারা পরিশ্রম করে খাবার তৈরি করেছেন তারা অসম্মানিত বোধ করেন।
  • ট্রাইপড, বড় লেন্স অথবা দামী ডিএসএলআর ক্যামেরা নিয়ে যাবেন না। তবে যদি আপনি কোনো ম্যাগাজিন, সংবাদপত্র অথবা অন্য কারো জন্য ছবি তুলবেন তখন আপনি এসব তিনি নিতে পারেন। সেই সময় আপনি ছবি তোলার জন্য নির্ধারিত জায়গার বাইরে পছন্দমত জায়গা বেছে নিবেন। যাতে করে অন্যান্য ক্রেতাদের সমস্যা না হয়।
  • কোনো প্রকার হৈচৈ না করে দ্রুত ছবি তোলা শেষ করবেন এবং সবশেষে খাবার খেয়ে রেস্টুরেন্ট থেকে বের হবেন।
  • কখনো কখনো খাবারের ছবি খারাপ হতে পারে; বিশেষ করে ফ্লাশ ব্যবহার করলে। এ ধরনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করবেন না।
  • খাবারের টেবিলে বসেই ছবি পোস্ট করবেন না অথবা কোনো লাইভ করবেন না। কয়েকজন মিলে যদি রেস্টুরেন্টে যান, তাহলে অল্প হলেও খাবার খাবেন।
  • রেস্টুরেন্টের নিয়ম-কানুন অনুসরণ করবেন। যদি আপনি না জেনে থাকেন, তাহলে সেখানকার কোনো কর্মীর কাছে থেকে জেনে নেবেন। অবশ্যই খাবার অর্ডার করার আগে ছবি তোলা যাবে কিনা জেনে নেবেন।
  • যদি রেস্টুরেন্টের কোনো স্টাফ ছবি তুলতে নিষেধ করেন, তাহলে অবশ্যই সেটি মানবেন। যদিও আপনি নিজের পকেট থেকে অর্থ ব্যয় করে খাচ্ছেন।

খাবারের ভালো ছবি তোলার নিয়ম-কানুন

আপনার তোলা ছবি যত সুন্দর হবে, আপনি তত বেশি সাড়া পাবেন। তাই খাবারের ছবি তোলার সময় বিশেষ কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলা দরকার। চলুন, জেনে নেওয়া যাক।

  • আপনার ইন্সটাগ্রামের ফলোয়ারদের পছন্দ-অপছন্দ বিবেচনা করে ছবি তুলবেন। তবে মনে রাখবেন অধিকাংশ মানুষই মসলাদার খাবারের চেয়ে ডেজার্টের ছবি বেশি পছন্দ করেন।
  • খাবারের খুব কাছে থেকে ছবি তুলবেন। তবে চারপাশে জায়গা রাখবেন, যাতে এডিট করার সময় ক্রপ করতে পারেন। ছবি তোলার সময় কোনো ফিল্টার ব্যবহার করবেন না।
  • ছবি তোলার সময় ফ্লাশ ব্যবহার করবেন না। এতে ছবির সৌন্দর্য নষ্ট হয়। ফ্লাশের পরিবর্তে ব্যাকলাইট অথবা সাইড লাইট হিসেবে অন্য ফোনের আলো ব্যবহার করবেন।
  • যদি একটা লাইট ব্যবহার করেন তাহলে ছবির একপাশে ছায়া পড়বে অথবা ছবি ফ্লাট হবে। একটা লাইটের কারণে আলো বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে ছবি খারাপ হয়। এই সমস্যা সমাধানের জন্য লাইটের সামনে পাতলা কোনো কাগজ অথবা টিস্যু ব্যবহার করতে পারেন।
  • ছবি সুন্দর হওয়ার একমাত্র রহস্য হলো ভালো লাইটিং। এই বিষয়টি মাথায় রেখে টেবিল নির্বাচন করবেন। আবার আপনি যদি চান সন্ধ্যার সময়ই রাতের খাবার খাবেন, তাহলে জানালার পাশে বসতে পারেন এবং সূর্যের সোনালী আলোর সহায়তায় অসাধারণ সব ছবি তুলতে পারবেন।
  • বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে ছবি তুলবেন। সামনে থেকে অথবা ওভারহেড ছবি তোলার সময় ১৫ ডিগ্রি করে সরে এসে ছবি তুলবেন।
  • যখন একাধিক খাবারের ছবি তুলবেন তখন ওভারহেড শট সবচেয়ে কার্যকরী। চেষ্টা করবেন ভালো মানের ওভারহেড ছবি তোলার। তবে অবশ্যই কোনো আসবাবপত্রের ওপর দাঁড়িয়ে নয়।

Featured Image Source: Getty Images

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here