WOW-এর মিল্কি মিন্ট ও চকোলেট ডিলাইট

0
264

ইদানিং প্রায় সকাল থেকেই প্রচন্ড রোদ থাকে। মাঝে মাঝে খানিকটা বৃষ্টি হলেও রোদ আর গরমের চলাচলই বেশি দিনের পুরোটা সময় জুড়ে। তাই সহজেই ক্লান্তি চলে আসে, তৃষ্ণা পায়। আর সেই তৃষ্ণা মেটাতে খানিকটা বরফ শীতল পানি যেন না হলেই নয়। সবার মতো আমারো একই অবস্থা। তাই গরমের তীব্রতা বাড়লেই বেড়ে যায় কোল্ড কফি কিংবা ঠাণ্ডা জুস খাওয়ার পরিমাণ। এবার গরমে কিছুটা স্বস্তির খোঁজে গিয়ে বসলাম ‘ওয়াও আমেরিকান এন্ড ম্যাক্সিকান ফুড’ (WOW- American and Mexican Food) ক্যাফেটিতে।

source: লেখিকা

বেশ পরিচ্ছন্ন ও ক্যাফেটির সুন্দর গোছালো সাজ-সজ্জা আর ভেতরের শীতল পরিবেশেই দুপুরের ক্লান্তি অনেকটা লাঘব হয়ে গেলো। এবার ভেতরের শান্তির পালা। মেন্যুটি হাতে নিয়ে চোখ বুলালাম ভালোভাবে। ‘কী অর্ডার করা যায়, কী অর্ডার করা যায়’ ভাবতে ভাবতে অর্ডার করে ফেললাম তাদের ক্যাফের চকোলেট ডিলাইট (Chocolate Delight)।

এই ক্যাফেটির ভেতরের ডেকোরেশন বা সাজসজ্জা খুব সাধারণ হলেও যে কারোই ভালো লাগবে। সাদা রঙের আধিক্য ভেতরের সাজ-সজ্জার পুরোটাতেই। সাদা দেয়ালে কালো রঙের সার্কেলের ডিজাইন পুরো ক্যাফেটি জুড়ে। সামনেই তাদের কাউন্টার। তার থেকে কিছুটা ভেতরে কফি ও অন্যান্য খাবার তৈরির জায়গা। এই ক্যাফেটিতে কফির পাশাপাশি পাওয়া যায় বেশ কিছু আমেরিকান ও মেক্সিকান খাবার।

source: লেখিকা

ক্যাফেটিকে ভালোভাবে লক্ষ্য করলে মনে হবে দেয়ালের সাজ-সজ্জা থেকে শুরু করে আসন বিন্যাস সব ক্ষেত্রেই তারা সার্কেল বা গোল আকৃতিটিকে বেশি প্রাধান্য দিয়েছেন। কারণ দেয়ালের গায়ে করা গোল আকৃতির ডিজাইনের সাথে মিল করা সেখানকার বসার সব টেবিলগুলো। মোটামুটি ২০ জন মানুষের বসার ব্যবস্থা রয়েছে ভেতরে। যদিও আরো অনেক বেশি মানুষ হলেও ক্যাফেটিতে বসার ব্যবস্থা করার মত যথেষ্ট জায়গা রয়েছে।

আমার অর্ডার করা চকলেট ডিলাইটটি হাজির হলো মিনিট দুয়েকের মধ্যেই। বড় আকারের একটি গ্লাসে ঠাণ্ডা এই পানীয়টি পরিবেশন করেছেন তারা। স্ট্র নিয়ে ভেতরে খানিকটা নাড়িয়ে আমি চুমুক দিলাম। দুধ, চকলেট, আইসক্রিম, বরফ আর চিনির মিশ্রণে তৈরি করা হয় চকলেট ডিলাইট। ভেতরে চকলেট আর চিনির পরিমাণই বেশি মনে হলো আমার।

source: লেখিকা

চকোলেট ডিলাইট অনেক বেশিই চকোলেট ছিলো, কিন্তু এর মিষ্টি স্বাদ আমার জন্য অতিরিক্ত মনে হচ্ছিলো। তবে যেহেতু অর্ডার করার সময় মিষ্টি স্বাদ নিয়ে কোনো নির্দেশনা আমি তাদের দেইনি, তাই আর কথা না বাড়িয়ে খাওয়ায় মন দিলাম। পরিমাণে বেশ ভালো ছিলো। আর মিষ্টি স্বাদ কিছুটা কম হলেই আমার জন্য এটি দারুণ একটি ড্রিংস হতো নিঃসন্দেহে।

যারা মিষ্টি স্বাদ ও চকলেট ভালোবাসেন তাদের জন্য এটি বেশ ভালো একটি পানীয় হবে। শিশুরাও বেশ পছন্দ করবে এই পানীয়টি। তাই সুযোগ পেলে স্বাদটা যাচাই করে দেখতে পারেন। ৬০ টাকা মূল্যের বেশ ভালো একটি পানীয়। সাথে গরমের থেকে অনেকটা স্বস্তিও মিলবে।

মিল্কি মিন্ট

source: লেখিকা

যেহেতু অতিরিক্ত মিষ্টি স্বাদ আমার পছন্দ নয় তাই মুখের এই মিষ্টি ভাব কমাতে (বলা চলে, আরো কিছুটা পানীয় পান করার উদ্দেশ্যে) অর্ডার করলাম আরো একটি ড্রিংস, এখানকার মিল্কি মিন্ট (milky mint)। এই পানীয়টি প্রায়ই পান করা হয়। তবে এখানে এর আগে নেওয়া হয়নি। আর এবার অর্ডার করার সময়ই ওয়েটারকে বলে রাখলাম আমার ড্রিংসের মিষ্টি স্বাদ সম্পর্কে।

পূর্বের মতো এবারো মিনিট দুয়েকেই হাজির হলো আমার অর্ডার করা মিল্কি মিন্ট। দুধ, ভ্যানিলা আইসক্রিম, বরফ, চিনি আর মিন্ট পাতার মিশ্রণে তৈরি করা হয় এই পানীয়টি। সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য ড্রিংসটির উপরে মিন্ট পাতা দিয়ে পরিবেশন করলেন তারা। বরফের পরিমাণ অনেক বেশি ছিলো ড্রিংসটিতে। তাই কিছু সময় অপেক্ষা করলাম বরফ গলার জন্য। আর বরফ কিছুটা গলতেই দ্রুত শেষ করলাম প্রিয় এই পানীয়টি।

এই ক্যাফেটিতে বিভিন্ন স্বাদের কফি ও ড্রিংসের সাথে পাবেন অন্যান্য বেশ কিছু খাবারও।

WOW-এর কফি ও শেক মেন্যুতে যা যা পাচ্ছেন (মূল্য সহ)

source: লেখিকা

চকলেট ডিলাইট ও মিল্কি মিন্টের স্বাদ

source: লেখিকা

যেহেতু খুব বেশি মিষ্টি পছন্দ নয় তাই চকলেট ডিলাইট কিছুটা খারাপ লেগেছে খেতে (চকলেটি যেহেতু মিষ্টি বেশি হওয়াই স্বাভাবিক। আমিই বরং না ভেবে অর্ডার করেছি)। তাই বলে ড্রিংসটিকে খারাপ বলা যাবে না মোটেও। আমার ধারণা এমন চকলেটি একটি ড্রিংস শিশুরা বেশ তৃপ্তি নিয়ে পান করবে।

রেটিং- ১০/৭

মিল্কি মিন্ট আমার বরাবরই ভালো লাগে। দুধ, ভ্যানিলা আইসক্রিম, বরফ আর মিন্ট বা পুদিনা পাতা মিলিয়ে তৈরি করা এই ড্রিংসটি বেশ ভালো লেগেছে। গরমের স্বস্তি নয় শুধু, স্বাদেও স্বস্তি আর তৃপ্তি পাবেন।

রেটিং- ১০/৯

মূল্য

চকলেট ডিলাইট ড্রিংসটির দাম মাত্র ৬০ টাকা ও মিল্কি মিন্ট ড্রিংসটির দাম তার থেকে ১০ টাকা বেশি, অর্থাৎ ৭০ টাকা। চকলেট ডিলাইট ও মিল্কি মিন্ট বাবদ খরচ হয়েছে ১৩০ টাকা। ১৩০ টাকা মূল্যে ভালো স্বাদের দুটি ড্রিংস! বেশ ভালোই বলা চলে।

অভ্যন্তরীণ সাজ-সজ্জা

source: লেখিকা

সাজ-সজ্জা সাধারণ। বেশ গোছালো ও পরিচ্ছন্ন একটি ক্যাফে। (ভেতরে ফ্রি ওয়াইফাই ব্যবস্থা রয়েছে)। সাদা কালো রঙের প্রাধান্য চোখে পড়বে পুরো ক্যাফেটিতে। সাথে ঝকঝকে সাদা আলোর ব্যবস্থা। গোল আকৃতির টেবিল ও আরামদায়ক আসনে বসার ব্যবস্থা।

সার্ভিস

ওয়েটারদের ব্যবহার বেশ ভালো ছিলো।

লোকেশন

দক্ষিণ বনশ্রী মেইন রোডে অবস্থিত ক্যাফেটি। ৮ নাম্বার রোডের কে ব্লক, শাপলা বিল্ডিংয়ের পাশেই।

ক্যাফেটি সহজে খুঁজে পেতে প্রয়োজনে যোগাযোগ করতে পারেন ‘০১৭১৪৯১৪০৯০’ এই নম্বরে।

ফিচার ইমেজ- লেখিকা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here